সাভারের বনগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামের সংবাদ সম্মেলন

সাক্ষাৎকার


স্টাফ রিপোর্টারঃ
মাদকের আস্তানা ভেঙ্গে দেয়া ইয়াবা বিক্রি ও চাঁদাবাজী বন্ধ করার ফলে সাভারের বনগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও বনগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাইফুল ইসলামের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে হয়রানীর অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করেছেন বনগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) দুপুরে বনগাঁও ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে তিনি এ সংবাদ সম্মেলন করেন। সংবাদ সম্মেলনে এসময় স্থানীয় বিভিন্ন ইলেকট্রনিক্স ও পিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিক ছাড়াও স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও ইউপি সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে এসময় বনগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম বলেন,তিনি বনগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব নেয়ার পরে গত কয়েক বছরে প্রায় ৬০ কোটি টাকার উন্নয়ন মুলক কাজ করেছেন। অবহেলিত বনগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের আনাচে কানাচে জীবনের ঝুকি নিয়ে প্রতিনিয়ত উন্নয়ন করে চলেছেন। যার ফলে বনগাঁও ইউনিয়নের কিছু ব্যক্তি তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে উঠে পড়ে লেগেছে।

এসময় তিনি আরো বলেন,বনগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের বেশ কয়েকজন ইউপি সদস্য দীর্ঘ দিন ধরে এলাকায় মাদক ব্যবসা ও চাঁদাবাজীসহ বিভিন্ন অপরাধ মুলক কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়েন। এসময় তিনি তাদের এ অপরাধ মুলক কর্মকাণ্ড প্রশাসনের সাহায্য নিয়ে তিনি বন্ধ করে দেন। যার ফলে বেশ কয়েকজন ইউপি সদস্য তার বিরুদ্ধে মিথ্যা ভুয়া রেজুলেশনসহ বিভিন্ন প্রকল্প থেকে টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে তুলে উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে অভিযোগ দায়ের করেন যার কোন ভিত্তি নেই।

এসময় তিনি আরো বলেন একটি হাউজিং কোম্পানী ইউপি সদস্যদেরকে ব্যবহার করে তার বিরুদ্ধে উঠে পড়ে লেগেছে। এছাড়া তিনি কোন ব্যক্তির জমি দখল ও মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত নন দাবি করে তিনি আরও বলেন বনগাঁও ইউনিয়নে তিনি কোন অবৈধ গ্যাস সংযোগ দিয়ে টাকা পয়সা হাতিয়ে নেননি। এছাড়া বতর্মান যুগে যেখানে সরকার প্রতিটি ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ সংযোগ পৌছে দিয়েছেন, সেখানে তিনি কিভাবে এলাকায় মানুষের বাড়িতে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়েছেন বলেও প্রশ্ন তোলেন। তার বিরুদ্ধে যারা এসব মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে তার সম্মান ক্ষুন্ন করেছেন তাদের তিনি কঠোর শাস্তি দাবি করেন। এছাড়া তিনি তার বিরুদ্ধে সকল আনিত অভিযোগ প্রশাসনকে তদন্ত করার দাবি জানান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করে তিনি আরো বলেন চেয়ারম্যানের দায়িত্ব নেয়ার পরে তিনি সকল ইউপি সদস্যদের বেতন ভাতা

ও এলাকার উন্নয়ন মুলক কাজ দিয়ে আসছেন। এসময় তিনি তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন গণমাধ্যমে ভিত্তিহীন সংবাদ প্রচারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। এসময় তিনি গণমাধ্যমে সত্য ও বস্তু নিষ্ট সংবাদ প্রচারের জন্য সাংবাদিকদের আহবান জানিয়ে বলেন তিনি যদি কোন দুর্নীতি করে থাকেন তাহলে তার বিরুদ্ধে সংবাদ প্রচার করলে তার কোন দুঃখ নেই। কিন্ত মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে সংবাদ প্রচার করলে গণমাধ্যমের উপর থেকে সাধারণ মানুষের আস্থা হারিয়ে যাবে বলেও বলেন তিনি।

এসময় সংবাদ সম্মেলনে বেশ কয়েকজন ইউপি সদস্য বলেন,চেয়ারম্যানের সাথে তাদের কোন মন্য মালিন্য নেই বলে দাবি করেন। সংবাদ সম্মেলন শেষে স্থানীয়রা মিথ্যা অভিযোগকারীদের কঠোর শাস্তির দাবিতে ইউপি কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন কর্মসুচী পালন করেন। এদিকে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে হয়রানী করার ফলে ইউনিয়নবাসী ফুঁসে উঠেছে মিথ্যা অভিযোগকারীদের বিরুদ্ধে তারা এসময় তদন্ত করে প্রশাসনকে ব্যবস্থা নেওয়ার জোর দাবি জানান।

স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা জানান ,ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম এ ইউনিয়নে ব্যাপক উন্নয়ন করে চলেছেন যার ফলে কিছু ব্যক্তি ইশ্বানিত হয়ে তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে হয়রানী করছেন।

মোঃ হুমায়ুন কবির

সত্য প্রকাশে অঙ্গীকারবধ্য একটি সংবাদ মাধ্যম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *